Home Sports ১০ ইনিংস মিলিয়েও ‘সেঞ্চুরি’ হয়নি ওয়ার্নারের

১০ ইনিংস মিলিয়েও ‘সেঞ্চুরি’ হয়নি ওয়ার্নারের

36
0

শেষ কোন টেস্ট সিরিজে এত বাজে খেলেছিলেন? প্রশ্নের জবাবটা খোদ ডেভিড ওয়ার্নারও হয়তো দিতে পারবেন না। তবে এবারের অ্যাশেজটা এতই বাজে কেটেছে তাঁর। তাঁর সঙ্গে তথৈবচ বাকি ওপেনাররাও।

টেস্টে ওপেনারদের ভূমিকা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ওপেনারদের তৈরি করে দেওয়া শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়েই বড় রান তোলার স্বপ্ন দেখে যেকোনো দল। তবে এবার অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়ার ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার, মার্কাস হ্যারিস বা ক্যামেরন ব্যানক্রফটরা দলকে সে নির্ভরতা দিতে পারেননি।
ওয়ার্নার তো এবারের অ্যাশেজ নিয়ে কথাই বলতে চাইবেন না এবং যত দ্রুত সম্ভব এটি ভুলে যেতে পারলেই বাঁচবেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান যেন ব্যাটিং করতেই ভুলে গিয়েছিলেন। বল টেম্পারিং-কাণ্ডে নিষিদ্ধ হওয়ার পর এটি ছিল তাঁর প্রথম সিরিজ। স্টিভ স্মিথ আলো ছড়িয়েছেন এবং নিজেকে নিয়ে গেছেন অন্য উচ্চতায়, কিন্তু ওয়ার্নার রইলেন নিজের ছায়া হয়েই। ১০ ইনিংস ব্যাটিং করেও সাকল্যে তাঁর সংগ্রহ ৯৫—গোটা সিরিজ মিলিয়েও নিজের ব্যক্তিগত রানকে ‘সেঞ্চুরি’ পার করাতে পারেননি এই বাঁ হাতি ওপেনার। গড়ও তাঁর অবিশ্বাস্য—৯.৫!

ইতিহাসের কোনো ওপেনিং ব্যাটসম্যান পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ১০ ইনিংস ব্যাট করে এত কম রান করেননি। আগের রেকর্ডটা ছিল ইংলিশ ওপেনার সাইরিল ওয়াশব্রুকের এবং ১৯৫০-৫১ অ্যাশেজে ১০ ইনিংস ব্যাটিং করে তিনি করেছিলেন ১৭৩। ওয়ার্নার তাঁকে এই লজ্জার হাত থেকে বাঁচিয়েছেন গোটা সিরিজ মিলিয়ে ৯৫ রান তুলে।

সবচেয়ে দৃষ্টিকটু ছিল ওয়ার্নারের আউট হওয়ার ধরন। ইংলিশ পেসার স্টুয়ার্ট ব্রড রীতিমতো পেয়ে বসেছিলেন তাঁকে। ১০ বারের মধ্যে ৮ বারই তিনি আউট হয়েছেন ব্রডের বলে। জো রুট যত দিন ধরে ইংল্যান্ডের অধিনায়কত্ব করছেন, এর চেয়ে সহজ সিদ্ধান্ত বোধ হয় আর কখনো নিতে হয়নি তাঁকে। কী সিদ্ধান্ত? ওয়ার্নার যখনই ব্যাট করতে আসতেন, চোখ বন্ধ করে বলটা দিয়ে দিতেন ব্রডকে। আর সে সিদ্ধান্তে রুট যে কতটা সফল, দেখতেই পাচ্ছেন। ১০ বারের মোকাবিলায় সাতবারই ব্রডের কাছে পরাস্ত হয়েছেন ওয়ার্নার। কষ্টেসৃষ্টে ৩৫ রান তুলতে পেরেছেন ব্রডের বলে এবং ওয়ার্নার-ব্রড দ্বৈরথে ব্রডের সাফল্যের হার ৭০ শতাংশ।

অস্ট্রেলিয়ার ওপেনিং-দৈন্যের ওয়ার্নারের পাশাপাশি ভূমিকা আছে মার্কাস হ্যারিস ও ক্যামেরন ব্যানক্রফটেরও। ৫ টেস্টের ১০ ইনিংসে একবারও অস্ট্রেলিয়ার ওপেনিং জুটি ২০ পেরোতে পারেনি এবং সর্বোচ্চ তুলেছে ১৮ রান, তাও ওভালের শেষ টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে। এই তিনজন মিলে এই সিরিজে মোট ১৪ বার এককের ঘরে আউট হয়েছেন, অর্থাৎ ন্যূনতম ১০ রানও করতে পারেননি। টেস্ট সিরিজের ইতিহাসে এতবার ১০ রানের কমে কোনো দেশের ওপেনাররা আউট হননি।

এমন ওপেনিং নিয়ে অস্ট্রেলিয়া অ্যাশেজ কীভাবে নিজেদের কাছে রেখে দিতে পারল তার কারণ ওই স্মিথই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here