web analytics
Sports

সাকিবরা ৫ বছর আগে ফিরতে চাইবেন যে ম্যাচে

আফগানিস্তানের বিপক্ষে এ পর্যন্ত চারটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। একটা বাদে হেরেছে বাকি তিনটিতেই। বাংলাদেশের পাঁড় সমর্থকও আজ আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ম্যাচে বাংলাদেশকে ফেবারিট বলতে সাহস পাচ্ছেন না এবং আফগানিস্তানকে শেষবারের মতো টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ হারিয়েছিল ২০১৪ সালের মার্চে।

ঘড়ির কাঁটা উল্টো দিকে ঘুরিয়ে পাঁচ বছর পেছনে যাওয়া যাক। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ। সাকিব আল হাসান আর আবদুর রাজ্জাকের ঘূর্ণিজালে আটকে গেল আফগানরা, ৭২ রানেই শেষ। জবাবে কেবল তামিমের উইকেট হারিয়ে ১২ ওভারেই লক্ষ্য অতিক্রম করল বাংলাদেশ এবং অনায়াস জয় যাকে বলে আর কি!

সেই জয়ের পর কেটে গেছে আরও পাঁচ বছর। এই সময়ে আফগানিস্তানের সঙ্গে আরও তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ । তবে জয়ের মুখ আর দেখা হয়নি। এই তিনটি ম্যাচেই অবশ্য গত বছর—দেরাদুনে। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রতিটি ম্যাচেই পর্যুদস্ত হয়েছিলেন সাকিব-মুশফিকেরা।
রশিদ-নবীর ঘূর্ণি আর শাপুর জাদরানের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে প্রথম ম্যাচে ৪৫ রানে হার। দ্বিতীয় ম্যাচে আগে ব্যাটিংয়ে নেমেও রশিদ-নবীর আঙুলের জাদু পড়তে পারেননি বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। ফল, সাত বল হাতে রেখেই আফগানদের জয়। শেষ ম্যাচে হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর প্রাণপণ চেষ্টা করেছিলেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। তবে রশিদ-নবীর সঙ্গে মুজিবকেও মোটামুটি ভালোই খেলেছিলেন। কিন্তু এবার গলার কাঁটা হয়ে দেখা দিল আফগানদের দুরন্ত ফিল্ডিং। তিন রান আউটে সান্ত্বনার জয়টাও দূর মরীচিকা হয়েই রইল। বাংলাদেশ হারল এক রানে। নবীন আফগানরা টি-টোয়েন্টিতে পেল প্রথম হোয়াইটওয়াশের স্বাদ।

আজ আরেকটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে বাংলাদেশ-আফগানিস্তান। তবে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে একটু এগিয়ে থাকার দৌড়ে আজকে মাঠে নামবে সাকিব-রশিদরা। গত বছরের ওই তিন টি-টোয়েন্টি ম্যাচে হার যেন এই ম্যাচে বাংলাদেশকে ফেবারিট বলতে দিচ্ছে না। তাঁর ওপর যোগ হয়েছে নিজেদের মাটিতে আফগানদের হাতে টেস্টে ধরাশায়ী হওয়ার টাটকা স্মৃতি। যে টেস্টে হার যেন এক মুহূর্তেই দেশের ক্রিকেটের পথচলাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছে নিমেষে এবং সব মিলিয়ে সাকিবরা কি পারবেন আফগান জুজু পার হতে? উত্তর পাওয়া যাবে আজ বিকেলেই।

এবারও আছেন রশিদ খান, আছেন মোহাম্মদ নবী, আছেন মুজিব উর রহমান। আছে বলাটা ভুল হবে, আফগান দলের অন্যতম প্রধান খেলোয়াড় তাঁরা। ঐ দিকে আফগানদের বিপক্ষে বাংলাদেশের একমাত্র টি-টোয়েন্টি জয়ের দুই নায়ক সাকিব আর রাজ্জাকের মধ্যে শুধু সাকিবই আছেন বর্তমান দলে। আফগান-বধের সে টোটকাটা সাকিব কি সতীর্থদের কানে জপে দিতে পারবেন?

তা পারলেই ভালো। তাতে অন্তত টেস্ট হারের কাটা ঘায়ে একটু হলেও মলমের প্রলেপ পড়বে!

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close