Home Economy দীর্ঘ ১৫ মাস পর পোশাক শিল্পে ঘুরে দাঁড়াল বাংলাদেশ

দীর্ঘ ১৫ মাস পর পোশাক শিল্পে ঘুরে দাঁড়াল বাংলাদেশ

4717
0
ছবি: সংগৃহীত

২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর মাসে পোশাক শিল্পে বাংলাদেশের উপার্জিত মোট অর্থ ছিল ৩৯৩ কোটি ৮১ লাখ ডলার। কিন্ত ২০১৮ এর এই একঅই সময়ে এই আয় ৫ দশমিক ৮৪ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪১৬ কোটি ৮০ লাখ ডলারে।

প্রবৃদ্ধির সাথে সাথে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ও এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারের ৬ দশমিক ৪৬ শতাংশ বাংলাদেশের দখলে যা ২০১৭ এর সেপ্টম্বরের তুলনাই দশমিক ০৫ ভাগ বেশি। আপাতদৃষ্টিতে এই ভাগ অল্প মনে হলে ও আসলে এই দশমিক ০৫ ভাগ ও অনেক।

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশের পোশাকের বাড়তি চাহিদার কারন হতে পারে যুক্তরাষ্ট্র আর চীনের মধ্যে চলা বাণিজ্যযুদ্ধ। এই বানিজ্যযুদ্ধের কারনে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে কাপড়ের মূল্য বাড়িয়ে দিতে পারে চীন তাই আগে থেকেই বাংলাদেশের দিকে ঝুকছে যুক্তরাষ্ট্র। তৈরী পোশাক শিল্প মালিকেরা জানানা এই একই কারনে সামনে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে চাহিদা আরও বাড়তে পারে।

২০১৮ সালের প্রথম ৯ মাসে বিভিন্ন দেশ থেকে ৬ হাজার ২৪৮ কোটি ডলারের পোশাক আমদানি করেছে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ইউএস ডিপার্টমেন্ট অব কমার্সের আওতাধীন অফিস অব টেক্সটাইল অ্যান্ড অ্যাপারেলের (অটেক্সা) এর কাছ থেকে এই তথ্য জানা যায়। এবং এই আমদানীকৃত পোশাকের পরিমাণ ২০১৭ এর তুলনায় ২ দশমিক ৮৮ শতাংশ বেশি।

চীনের থেকে ধীরে ধীরে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র তা গত কয়েক বছরের পরিসংখান দেখলেই পরিষ্কার হয়ে যায়। যুক্তরাষ্ট্রের মোট আমদানীকৃত পোশাক এর পরিমান বাড়লেও বাড়ছে না চীনের রপ্তানি ওল্টো রপ্তানির পরিমান কমছে চীনের। ২০১৭ সালে আগের বছরের তুলানায় দশমিক ০৫ শতাংশ কমেছে চীনের রপ্তানি। আবার গত বছর শেষে চীনের বাজার হিস্যা ছিল ৩৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ। বর্তমানে সেটি কমে ৩২ দশমিক ৯৫ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

চীনের পরেই পোশাক শিল্পে দ্বিতীর রপ্তানিকারক দেশ হিসেবে জায়গা দখল করে আছে ভিয়েতনাম। ২০১৮ সালের প্রথম ৯ মাসে ৯২৩ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি করেছে এই দেশটি এবং তাদের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬ দশমিক ১০ শতাংশ যা ২০১৭ এর প্রবৃদ্ধির তুলনায় কম।

ভিয়েত নামের চেয়ে বাংলাদেশ বেশ পিছিয়ে রপ্তানির ক্ষেত্রে কিন্তু প্রবৃদ্ধিতে ভিয়েতনামের প্রায় কাছাকাছি চলে এসেছে তৃতীয় রপ্তানিকারক এই দেশটি। রানা প্লাজা ধসের পর বিভিন্ন চড়াঁই উতরাই পার হতে হয়েছে বাংলাদেশকে তবুও দীর্ঘ ১৫ মাস পর আবার মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশের পোশাক শিল্প। ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে পোশাক শিল্পে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ছিল মাত্র ২ দশমিক ৫ শতাংশ কিন্ত মাত্র ৮ মাসের ব্যাবধানে এই প্রবৃদ্ধি প্রায় বেঁড়েছে দ্বিগুণ। পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ- এর সাবেক সভাপতি ফজলুল হক আশার বানী শুনিয়ে বলেন বাণিজ্যযুদ্ধের কারণে মার্কিন ক্রেতাপ্রতিষ্ঠানের অনেক ক্রয়াদেশ চীনের থেকে বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া ও ভারতে যাবে। ইতি মধ্যে নতুন নতুন ক্রেতারা আমাদের উদ্যোক্তাদের সঙ্গে কথাবার্তা বলা শুরু করেছেন। পুরোনো ক্রেতারা ক্রয়াদেশ বাড়াচ্ছেন। ফলে ২০১৯ থেকে রপ্তানি আরও বাড়বে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here