Home international কারাগারে বসে কোরআন লিখলেন কাশ্মীরি কয়েদী

কারাগারে বসে কোরআন লিখলেন কাশ্মীরি কয়েদী

57
0
সংগ্রহীত প্রতীকী ছবি

আলি মোহাম্মদ ভাট নামে কাশ্মির শ্রীনগরের হাসনাবাদ রেইনওয়ারির বাসিন্দা হাতে পাওয়া ডায়রিতে দুই দুই বার নিজ হাতে পুরো কোরআন শরিফ লিখে ফেলেছেন। মিথ্যা অভিযোগে দীর্ঘ ২৪ বছর কারাবাস কালে তিনি কোরআন লেখার এই অসামান্য কাজটি করেছেন।

মাঝখানে দীর্ঘ ২৪ বছর কেটে গেলেও সম্প্রতি তিনি আরো দুই জন কাশ্মিরীসহ ভারতের জয়পুর আদালত থেকে মুক্তি পেয়েছেন।

১৯৯৬ সালে সংঘটিত একটি বিস্ফোরণ মামলায় ২৪ বছর জেল খাটার পর সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছেন আলি মোহাম্মদ ভাটসহ পাঁচ ব্যক্তি, তাদের মধ্যে তিনজন কাশ্মিরি। ১৯৯৬ সাল থেকে তারা বন্দি ছিলেন। এ সময় তাদের বিরুদ্ধে দিল্লি ও আহমেদাবাদের জেলে অভিযোগ দায়ের করা হয়।

আলী মোহাম্মদ ভাট বলেছেন, আমি বল-পয়েন্ট পেন দিয়ে চারটি ডায়রিতে দুইবার পুরো কোরআন লিখেছি। প্রথম কপিটি আট মাস লেগেছিল লিখতে। আর ৬ মাস সময় লাগে দ্বিতীয় কপিটি লিখতে।

*ভাটের পরিবারের একজন শিশু সদস্য গণমাধ্যমের সামনে মেলে ধরেছেন হাতে লেখা পবিত্র কোরআনের কপি। পাশেই বসা ভাট।

তিনি আরো বলেন, তিনি পবিত্র আয়াতগুলো অনুলিপি করতেন কোরআনের একটি মুদ্রিত সংস্করণ থেকে। ডায়রিতে আয়াতগুলো লিখতেন এবং তিনি প্রতিদিন পবিত্র সে আয়াতগুলো পাঠ করতেন।

তিনি বলেন, না, আমি  হাফেজে কোরআন নই। আমার সংকীর্ণ কক্ষে পবিত্র কোরআনের একটি কপি আমার সঙ্গী ছিল। সেখান থেকেই কপি করতাম। আমার মনে হয়েছিল, এর মাধ্যমে আল্লাহর প্রতি আমার বিশ্বাস আরো বাড়বে এবং এটিই হবে কারাগারে সময় পার করার সবচেয়ে ভালো উপায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here