web analytics
Bangladesh

ইফা’র ২ কর্মকর্তার বি’রুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

নিউজ ডেক্স: ইসলামী ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ-এর পরিচালনায় দেশব্যাপি মসজিদ-ভিত্তিক শিশু ও গণ শিক্ষা কার্যক্রম-তদারকিতে উপজেলা পর্যায়ে ৩ জন কর্মকর্তা রয়েছে। তার মধ্যে মানিকছড়ি উপজেলার ভারপ্রাপ্ত মডেল কেয়ারটেকার ও সাধারণ কেয়ারটেকার’র-বিরুদ্ধে সম্প্রতি দায়িত্ব ও ব্যক্তি কেন্দ্রীয় নানা কল্প’কাহিনী সম্বলিত অভিযোগ উঠায় উপজেলার তৃণ’মূলে সম্প্রতিকালের শিক্ষা-কার্যক্রম নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা চলছে। সচেতন মহল বলছে ফিল্ড-সুপারভাইজার নিয়মিত কর্মস্থলে না থাকায় সহকারীরা নানা অনিয়মে জড়িয়েছে। ফলে চরমভাবে ইফা’র কার্যক্রম-ব্যাহত হচ্ছে।

ইফা’র অফিস ও অভিযোগ-পর্যালোচনায় দেখা গেছে, মানিকছড়ি উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের ৬৫টি মসজিদ-ভিত্তিক শিশু ও গণ-শিক্ষা কার্যক্রম রয়েছে। যার মধ্যে একটিতে বয়স্ক ও ৬৪টি প্রাক-প্রাথমিক এবং সহজ কোরআন শিশু শিক্ষা-কার্যক্রম চালু রয়েছে। ইতোমধ্যে নানা-অনিয়মের কারণে ১১টি কেন্দ্র বন্ধ রয়েছে। আর এসব কার্যক্রম তদারকিতে ফিল্ড-সুপারভাইজার, মডেল কেয়াটেকার ও সাধারণ কেয়ারটেকাররা দায়িত্ব-পালন করছেন। 

২০১৮-২০২০ জানুয়ারি-মার্চ পর্যন্ত উপজেলার ৬৫টি ইফা’র শিক্ষা-কার্যক্রম তদারকিতে থাকা ভারপ্রাপ্ত মডেল কেয়াটেকার মোঃ আবুল কাশেম ও সাধারণ-কেয়ারটেকার মো. মঈনুল হকের বি’রুদ্ধে সম্প্রতি আলাদা, আলাদা ভাবে উপ-পরিচালক, ইফা ও খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক বরাবরে ২টি অ’ভিযোগ দায়ের করেন সচেতন ব্যক্তিবর্গ ও একজন শিক্ষক।

সাধারণ-কেয়ারটেকার মো. মঈনুল হক’র বি’রুদ্ধে আনিত-অভিযোগে বাদী হয়েছেন মো. আবদুল মান্নান, জাহাঙ্গীর ও সফিক। অ’ভিযোগে এদের বিস্তারিত-পরিচয় উল্লেখ না থাকলেও সাধারণ কেয়ারটেকার-বিরুদ্ধে ভূয়া-কেন্দ্র, ভূয়া-শিক্ষক দেখিয়ে অর্থ-আত্মসাৎ, অফিসে অনৈতিক-কর্মকাণ্ড পরিচালনা’সহ জায়গা-জমি দখল ও একটি হত্যা-মামলায় জড়িত উল্লেখ করে নানা কল্প-কাহিনী তুলে ধরা হয়েছে। যদিও অভিযুক্তের-দাবী তিনি জায়গা-জমি দখল সংক্রান্ত অভিযোগে পুলিশি চার্জ’শীট এবং হত্যা-মামলায় আদালত থেকে অনেক আগেই দায়’মুক্তি পেয়েছেন। এর পরও বাদীরা ওই বিষয়গুলো উল্লেখভ করে দায়িত্ব-সংশ্লিষ্ট কাজে অনিয়ম ও দুর্নীতির-অভিযোগ এনেছেন। যা এখনো তদন্ত-শুরু করেননি ইফা,খাগড়াছড়ি’র উপ-পরিচালক।

অপরদিকে ভারপ্রাপ্ত মডেল-কেয়ারটেকার মো. আবুল কাশেম’র বি’রুদ্ধে গত ডিসেম্বর মাসে ইফা’র উপ-পরিচালক বরাবর এবং ১০ জানুয়ারি-২০২১ তারিখে জেলা-প্রশাসক বরাবরে চেংগুছড়া গুচ্ছগ্রাম জামে মসজিদ কেন্দ্রের শিক্ষক মো. নুরুজ্জামান কর্মস্থল-ত্যাগ করলেও তাকে কর্মস্থলে উপস্থিত দেখিয়ে বেতন-ভাতা ভোগ-করার অ’ভিযোগ করেন দুই শিক্ষক মো. ফয়েজ উল্লাহ ও মো. মতিউর রহমান।

অভি’যোগে বলা হয়- মো. আবুল কাশেম কর্মস্থল-ত্যাগ করা শিক্ষক মো. নুরুজ্জামানকে কর্মস্থলে বহাল দেখিয়ে ওই শিক্ষক থেকে চেকের মাধ্যমে দু’টি চেকে ২৬ হাজার ৫ শত টাকা উত্তোলন-করেন। যদিও প্রথম অ’ভিযোগে সত্যতা পাওয়ায় সম্প্রতি মো. আবুল কাশেমকে অতিরিক্ত দায়িত্ব অর্থাৎ ভারপ্রাপ্ত মডেল-কেয়ারটেকার থেকে তাকে অব্যাহতি-দেন ইফা কর্তৃপক্ষ।

অন্যদিকে সাধারণ কেয়ারটেকার এর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের-তদন্ত শুরু না হতেই মো. আবুল কাশেম’র বি’রুদ্ধে আরেকটি অভিযোগ-দায়ের হওয়ায় পুরো উপজেলায় ইফা শিক্ষার কার্যক্রম ও অফিস প্রধান (ফিল্ড সুপারভাইজার) মো. ইউসুফ বাহার’র কর্মদক্ষতা ও কর্মস্থলে অ’নিয়মিত থাকার বিষয়ে প্রশ্ন তুলছেন সচেতন মহল।

অনেকে মনে করছেন অফিস প্রধান সহযোগিদের-কর্মকাণ্ড ঠিকমতো মনিটরিং না করার সুযাগে সাধারণ কেয়ারটেকার ও ভারপ্রাপ্ত মডেল-কেয়ারটেকার কম-বেশি অনিয়মের-সুযোগ নিয়েছে। প্রাতিষ্ঠানিক অনিয়মের পাশাপাশি অভিযোগকারীরা অভিযুক্তদের পারিবারিক নেতিবাচক কর্মকান্ড অভিযোগে এসে ইফা’র সামগ্রিক কর্মকাণ্ড-প্রশ্নবিদ্ধ করতে কাজ করছে একাধিক মহল। 

সাধারণ কেয়ারটেকার মো. মঈনুল হক তার বি’রুদ্ধে উপস্থাপিত অভিযোগ অ’স্বীকার করে বলেন, ভূয়া-কেন্দ্র, ভূয়া-শিক্ষক কিংবা এই কার্যক্রমে অনৈতিক-কর্মকান্ড করার সুযোগ নেই। এর পিছনে ষড়যন্ত্র রয়েছে ! পর্দার আড়ালে থেকে অফিস সংশ্লিষ্ট কেউ না কেউ এটা করাচ্ছে। অপরদিকে আরেক অভিযুক্ত মো. আবুল কাশেমকে এ বিষয়ে জানতে বেশ কয়েকবার তার মুঠো’ফোনে যোগাযোগ করলেও সে রিসিভ করেনি।

উপজেলায় ইফা’র শিক্ষা কার্যক্রম প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে কী না তা জানতে চাইলে উপজেলা ফিল্ড-সুপারভাইজার মো. ইউসুফ বাহার নিজেকে সম্পূর্ণ দায়’মুক্ত রেখে বলেন, পরপর দুইজন দায়িত্বশীল’র-বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠায় আমরা বিব্রত! অবস্থা’দৃষ্টে মনে হচ্ছে অভিযোগ দুটিতে একে, অপরের হাত রয়েছে। ইতো’মধ্যে মো. আবুল কাশেমকে পূর্বের একটি অভিযোগে ভারপ্রাপ্ত মডেল-কেয়ারটেকার থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। জনপদে ইফা’র শিক্ষা-কার্যক্রম স্বাভাবিক ও স্বচ্ছ রাখতে অভিযুক্ত দু’জনের বিষয়ে ইফা’র খাগড়াছড়ি উপ-পরিচালক সিদ্ধান্ত নিবেন। 

Related Articles

Back to top button
Close
Close