web analytics
Technology

আপনার ফোনের কথা অন্য কেউ শুনছে কিনা

আপনি হয়তো চিন্তা করছেন সেলফোন কোম্পানির কারো সাহায্য ছাড়া কিংবা পুলিশ ছাড়া কেউ ফোন ট্যাপ করতে পারবে না। আসলে আপনার স্মার্টফোন ট্যাপিং বা মনিটর করা পানির মতো সহজ কাজ। জাস্ট আপনার ফোনে স্প্যাইং অ্যাপ একবার ইন্সটল করিয়ে দিতে পারলেই কাজ শেষ। বিশেষ করে আপনার ফোন যদি রুটেড হয়ে থাকে, তবে এরকম অ্যাপ আপনার ধারণার বাইরে আপনার ফোনে কাজ করবে, আর আপনি টু পর্যন্ত টের পাবেন না।

চিন্তা করে দেখুন, আপনি সাড়াদিন ফোনে কতো গুলো কল করেন, কতো টাইপের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গুলোর সাথে ডিল করেন, আর সেগুলো যদি কোন তৃতীয় পক্ষের কাছে চলে যায় সেটা কতো ভয়ংকর ব্যাপার হতে পারে। কল ট্যাপিং যেকোনো দিক থেকেই আপনার জন্য ক্ষতিকর হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে। তবে চিন্তার খুব একটা বেশি কারণ নেই, নিচের প্যারাগ্রাফ গুলোতে আমি কিছু কৌশল শিখিয়ে দিচ্ছি, যেগুলো সঠিক অনুসরণ করলে আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন আপনার ফোন কেউ স্প্যাইং করেছে কিনা।

ব্যাকগ্রাউন্ড নয়েজ : ফোন ট্যাপ করা হলে বিশেষ করে ফোনে কথা বলার সময় অদ্ভুত রকমের ব্যাকগ্রাউন্ড শব্দ শুনতে পাওয়া যায়। এমন বিপবিপ শব্দ বা আজব রকমের নয়েজ যদি অনর্গল শোনা যায় তবে হতে পারে আপনার ফোনে অন্য কেউ আড়ি পেতেছে।

বিশেষ করে কথা না বলে চুপ করে থাকলেও যদি এমন কোনো রকম নয়েজ আসে, তাহলে হতে পারে আপনি ফোন ট্যাপিংয়ের শিকার হয়েছেন। আবার দু’প্রান্তের নেটওয়ার্ক বার ফুল থাকা সত্ত্বেও যদি কল চলাকালীন ক্রমাগত কথা কেটে কেটে আসে বা ভয়েস ভেঙে যায় তবে এটিও ফোন ট্যাপিংকেই ইঙ্গিত করে।

ব্যাটারি লাইফ চেক করুন : হঠাৎ করে যদি আপনার ফোনের ব্যাটারির চার্জ অস্বাভাবিকভাবে কমে যায়, তবে তা আপনার ফোন ট্যাপ হওয়ার আরেকটি লক্ষণ হতে পারে।

আপনার ফোনকল অ্যাপের সাহায্যে তৃতীয়পক্ষের কাছে পাঠানোর সময় ফোনের ব্যাটারির চার্জ দিগুণ ক্ষয় হয় আর এ জন্যই ফোন ট্যাপ করা হলে ফোনের ব্যাটারির চার্জ দ্রুত ফুরিয়ে যেতে পারে এবং ফোন অস্বাভাবিক গরম হয়ে উঠতে পারে। তবে স্মার্টফোনে একসঙ্গে অনেক অ্যাপ্লিকেশন অন থাকলেও এমনটা হতে পারে।

ফোন বন্ধ করে দেখুন : আপনার ফোন ট্যাপ বা মনিটর করা হলে অবশ্যই ফোনে আজব শব্দ শুনতে পাবেন বা ফোন দ্রুত গরম হয়ে উঠবে কিংবা আপনার ফোন কোনো কারণ ছাড়াই রিস্টার্ট হতে শুরু হবে বা হঠাৎ করে ফোনের আলো জ্বলে উঠতে পারে।

এসব হলে বুঝতে হবে আপনার ফোনে নিশ্চয়ই কোনো রিমোট এক্সেস রয়েছে। অর্থাৎ, বাইরে থেকে কেউ আপনার ফোন নিয়ন্ত্রণ করছে। বিষয়টি নিশ্চিত হতে আপনার ফোনটি শাটডাউন করে দেখুন।

যদি সম্পূর্ণ ফোন শাটডাউন হওয়ার পরও স্ক্রিনে আলো জ্বলতে থাকে বা শাটডাউন নিতে অনেক দেরি হয় কিংবা শাটডাউন ফেইল হয়ে যায়, তাহলে বুঝতে হবে অবশ্যই কোনো সমস্যা রয়েছে।

ইলেকট্রনিক কলিউশন চেক : লক্ষ করলেই দেখা যায়, ফোন থেকে কল করার সময় ফোনটি যদি কোনো স্পিকারের সামনে থাকে, সে ক্ষেত্রে স্পিকারে অনর্গল নয়েজ করতে শুরু করে।

তাছাড়া আপনার ল্যাপটপ, আলাদা ফোন, বা টিভিতেও বিপবিপ নয়েজ শোনা যেতে পারে। যদি দেখেন, ফোন থেকে কল না করলেও আপনার ফোন স্পিকারের সামনে বা টিভির সামনে নিয়ে গেলে ওই রকম বিপবিপ আওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে, তাহলে বুঝতে হবে অবশ্যই সমস্যা রয়েছে বা আপনার ফোন কেউ ট্যাপ করে রেখেছে।

হঠাৎ ফোনের টাকা শেষ : সাধারণত স্প্যাইং অ্যাপগুলো ফোনের ইন্টারনেট ডাটা ইউজ করতে পারে, যদি ফোনে কোনো ডাটা প্যাকেজ কেনা না থাকে, সে ক্ষেত্রে ফোনের ব্যালেন্স দ্রুত শেষ হয়ে যেতে পারে।

আর পোস্ট পেইড ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে মাসের শেষে বিরাট অঙ্কের বিল চলে আসতে পারে। এ ক্ষেত্রে ফোন বিলের বিস্তারিত তথ্য যাচাই করে অসঙ্গতি থাকলেই বোঝা যাবে।

কোড ব্যবহার : *#৬২# আপনার নম্বরটি অন্য কোথাও রিডিরেক্ট করা থাকলে আউটগোয়িং এবং ইনকামিং ভয়েসকল, মেসেজসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চলে যাবে অনাকাক্সিক্ষত নম্বরে।

এ নম্বরটিতে ডায়াল করলে জানা যাবে মোবাইল নম্বরটি কোথাও রিডিরেক্ট অর্থাৎ পুনর্নির্দেশিত করা আছে কিনা। যদি থাকে তবে সেই ফোন নম্বরসহ সব তথ্য জানিয়ে দেবে একটি মেসেজ।

##০০২# মোবাইল ফোন অপারেটরে কার্যকর নম্বর ##০০২#। এই নম্বরে ডায়াল করে যে কোনো ধরনের রিডিরেক্ট বাতিল করা যাবে।

এ ছাড়া মোবাইল ফোন ও প্রযুক্তি ব্যবহারে সুরক্ষিত হতে সচেতন হওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন। ব্যক্তিগত তথ্য সবার জন্য উন্মুক্ত রাখা থেকে বিরত থাকতে হবে এবং এ ক্ষেত্রে সচেতনতা অত্যন্ত জরুরি।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close